#১ সাগরের ডাকবাক্স

চিঠিগুলি আসে যায়

কিছু কিছু দূরে ভেসে রয়-

দৃশ্য়পটে।

তবে

কিছু কিছু ফিরে আসে বটে তটে।

কেউ বা মিলিয়ে যায়

দূরে, বহূদূরে-

সে কোনো এক অদৃশ্য় বাঁকে।

এতো চিঠি, শত চিঠি

কোনটা যে ধরি?

এককোনে বসে

কোনটা যে পড়ি-

একমনে?

ক্ষয়ে যাওয়া ভূমে,

হলুদে সাদা বালুর আকর্ষণভেদে-

ঝাউবীথি জেগে ওঠে।

আর

আদিম আদিবাসীনির বনজ ঘ্রাণ শুঁকে

দামাল মাদলে

দিগন্ত ছুঁতে যায়।

 

#২ জানা- অজানা

দৃশ্য় খোঁজে ফেরে অদৃশ্য়েরে-

বোধ হতে বোধীহীনতায়।

বোঝা- অবুঝের ফাঁক কতটুকু?

জানি কি,

দেহ মানে কি বিদেহীতার?

বাস্তব,

স্বপ্নের পাড়ে রেখেছে-

কি পরাবাস্তবতার?

পঞ্চভূতে সুখ- অসুখ-

পঞ্চভূতে লয়।

প্রলয় অভিযান শেষে

পদ্মপাত্রে বারিবিন্দুসঞ্চয়।

***

 

#৩ ভারত দর্শন

ঘুরে ফিরে আসি যাই

কদাচিৎ সেই ছায়ামাখা ঠিকানায়-

নবরসে আহ্লাদিতের

আমোদী পোষাকী ব্য়ন্জনায়।

অমৃতি অমৃতি নিয়ে

সে যেনো মায়ামধুর প্রাপ্তি।

জলছাপে জেগে থাকে

অম্লমধুর অকুন্ঠ ব্যপ্তি।

কেকা- কোকিলার হর্ষধ্বনি

প্রশান্ত বনে জাগরুক-

স্মতিপটে ভেসে ওঠে

সদাবিষাদময় এক রাখীমুখ।

***

 

#৪ বোধ

উড়িয়ে দিচ্ছি,

ছড়িয়ে দিচ্ছি-

হাওয়ার বানে ভাসিয়ে দিচ্ছি;

মিশিয়ে দিচ্ছি,

অনুকণায়।

রক্তে মিশে যাচ্ছে বিষে-

গাঢ়নীলের অবোধ্য়তায়।

মিশে যায়

আসলি ভেজাল,

মিশে যায়

মূল্য়বোধ;

মিলে মিশে একাকার

সামাজিক নীতিরোধ।

কবে থেকে বসে থাকা,

কবে থেকে আবছায়াময়-

জনৈক মিশাল রয়

দৃঢ়হস্তে কর্মপ্রাণময়,

গরল- অমৃতের

ব্য়বচ্ছেদতায়।

সব হোক

বোধী হোক

আপাত পঙ্কলতায়।

মন্দ- ঠিকের হিসাব শিখুক

আমজনতায়।

***

 

#৫ পোষ্য়

তুই কি আমার পোষ মানবি?

দুধ দেবো, মাছ দেবো-

সর ধরলে  চেঁছে দেবো।

সময়ে-অসময়ে, এটা-ওটা-

ঠান্ডা নামলে –

উষ্ণ জামা।

গরমকালে –

শীতল পাখা।

চিনবি আমায়,

বুঝবি মোরে।

পালাবি নি আর,

দূরে দূরে।

সব মানব তোর।

এবার শুধু আমি করি একটু জোর-

পেছন থেকে আঁচড়ে আমায়,

দিসনা জোরে দৌড়।

***

 

~ সাগরের ডাকবাক্স ~
Print Friendly, PDF & Email
0 0 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments