নবরত্ন দীপপ্রভা              উজ্জয়িনী রাজসভা

                   উদ্ভাসিত করে অনুক্ষণ,

মহাকবি কালিদাস            জিহ্বাগ্রে সারদা বাস

                    সত্য তিনি অমূল্যরতন।

তাঁহার কাব্যকৃতি            চৌদিকে লভে স্তুতি

                    মেঘদূত এক সুবর্ণখনি,

কিন্তু কবি সম্প্রদায়            মানিতে নারেন হায়

                    কালিদাসে কবিশিরোমণি।

অন্তর্দাহ যন্ত্রণা                    মহারাজে মন্ত্রণা

                  বাণীমাতে করুন আবাহন,

শ্রেষ্ঠ কবি কে বা ভবে         জিজ্ঞাসিবে দেবীরে সবে

                  সমস্যার হইবে নিরসন।

মহারাজ বিক্রমাদিত্য            বিক্ষিপ্ত তাঁহার চিত্ত

                      অনিদ্রায় ক্লিষ্ট নয়ন,

লভিতে দৈববাণী                   আরাধনে বীণাপাণি

                     মন্দিরে মহাপূজা আয়োজন।

উজ্জয়িনী জনারণ্য              দেবীর আশীষ ধন্য

                     কে আছেন হেথা কবিবর,

নিবারণে কৌতূহল                  পুরবাসী চঞ্চল

                    কাহারো সহে না বুঝি তর।

অবশেষে পূজান্তে                    মহারাজ একান্তে

                      দেবীরে করেন নিবেদন,

শ্রেষ্ঠ কবি নিরূপণে                  অসমর্থ সভাজনে

                        মাগি মাতে দিশাদর্শন।

সহসা আকাশবাণী                  বাগদেবী সুরধ্বনি

                     সুদূর হইতে আসে ভাসি,

দণ্ডী কবি দণ্ডী কবি                  কাব্যাকাশে তিনি রবি

                      মহাশ্বেতা কণ্ঠে ঝরে হাসি।

শ্রবণি দৈববাণী                      স্তম্ভিত উজ্জয়িনী

                    দেবীভাষে বুঝি অপ্রত্যয়,

অবিশ্বাস্য অসম্ভব                   মণ্ডপে কলরব

                       অন্তরে ঘোর সংশয়।

কিন্তু বিদ্বেষী অরিকুল                 কালিদাসে চক্ষুশূল

                      নৃত্য করে সবে উল্লাসে,

কবিচিত্ত ব্যাথাতুর                    নাহি সেথা বাজে সুর

                       আঁখিজলে গণ্ডদেশ ভাসে।     

বিদ্রুপ কটাক্ষবাণ                      হায় কি অবমান

                     ব্যর্থ বুঝি অনিত্য জীবন,                                

ভাবিতে ভাবিতে কবি                আবাহনে নিদ্রাদেবী

                      হেরিলেন অদ্ভুত স্বপন।

শুভ্রকান্তি সরস্বতী                      বিদীপ্তা জ্যোতিষ্মতী

                         সম্মুখে তাঁহার উপবিষ্ট,

জিজ্ঞাসেন স্নেহভরে                    পুত্র মম কহ মোরে

                          কি হেতুক তব মনোকষ্ট।

উত্তরে মহাকবি                            কহিলেনহে দেবী

                     দণ্ডীরে করিলে কবিরাজ,

মানসপুত্রের হায়                          গৌরব ভুলুণ্ঠায়

                      লভিয়াছে অনন্ত লাজ।

পুত্র তুমি নহে কবি                        সহাস্যা বাগদেবী

                   তোমাআমা নাহি কোন ভেদ,

তোমার কাব্যকৃতি                         তাহা মোর ব্যাহৃতি

                     হে বৎস, দূর কর খেদ।

আজ্ঞা দিব মহারাজে                    পুনর্বার মোরে পূজে

                      কালিদাসে জানিতে স্বরূপ,

কাদম্বরী অন্তর্হিত                        মহাকবি নিদ্রোত্থিত

                       রজনী নিষুপ্ত নিশ্চুপ।

মাতৃ আজ্ঞা লভি রাজা                আয়োজনে বাগীষা পূজা

                        কবিকুলে নাহি উচ্ছ্বসন,

পূজান্তে সদৃশ চিত্র                       কবিবর দণ্ডী মিত্র

                          দৈববাণী সারদা বচন।

শুধান রাজন এবে                     কালিদাস কে বা ভবে

                       তাঁহারে যে কবিরাজ জানি,

আপনার মতে মাতা                   দণ্ডীই শ্রেষ্ঠ মাতা

                       কিরূপে তাহা মানে উজ্জয়িনী !

উত্তরে সরস্বতী                          কহেনহে মূঢ়মতি

                   কালিদাস হইল মোর চিত্ত,

তাহাতে আমাতে দোঁহে                ভিন্নসত্তা নাহি বহে

                      বিষ্ময়ে সবে পুলকিত।

অত:পর কালিদাসে                    কেহ নাহি পরিহাসে

                       তিনি মহামহিমান্বিত,

ঈশ্বর ভক্ত মাঝে                        ভেদাভেদ নাহি সাজে

                       প্রবচনে গীতা অমৃত।

                      

                               

Print Friendly, PDF & Email
0 0 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments